কে তোমাকে ধারনা দেবে সেই ভীষণ আঘাত সম্পর্কে?—আল-ক্বারিআহ

এক ভীষণ আঘাত! কী সেই ভীষণ আঘাত? কে তোমাকে ধারনা দেবে সেই ভীষণ আঘাত সম্পর্কে?
একদিন মানুষ বিক্ষিপ্ত পতঙ্গের মতো ছোটাছুটি করবে। আর পর্বতগুলো হয়ে যাবে ধুনা পশমের মতো।
তারপর যার ভালো কাজের পাল্লাগুলো ভারি হবে, সে থাকবে আরাম-আয়েসে, সুখে-শান্তিতে। আর যার পাল্লাগুলো হালকা হবে, তাকে গ্রাস করবে এক গভীর গর্ত।
কে তোমাকে ধারনা দেবে সেটা কী? সেটা এক লেলিহান শিখার আগুন।
—আল-ক্বারিআহ

এক ভীষণ আঘাত! কী সেই ভীষণ আঘাত?

আল-ক্বারিআহ الْقَارِعَة এসেছে ক্বারাআ قرع  থেকে, যার অর্থ এমনভাবে বারি দেওয়া, যার আওয়াজ শুনে মনে আতংকের সৃষ্টি হয়। যেমন, কেউ রাতের বেলা এসে ধুম ধুম করে দরজায় বারি মারছে।[৭] আপনি আতংকিত হয়ে গেলেন, পুলিশ এলো নাকি? এই ধরণের বারি হচ্ছে ক্বারাআ, যা মানুষের মনে আতংক তৈরি করে। ক্বারিআহ হচ্ছে ক্বারাআ-এর চরম রূপ —এক ভীষণ বারি, যা শুনে মনে ত্রাসের সৃষ্টি হয়। এমন এক বারি, যা ভেঙ্গে সব তছনছ করে দেয়।[১]

কিয়ামতের আগমন হবে এক ভীষণ বারির মাধ্যমে। রাতের বেলা কেউ এসে দরজায় বারি দিলে ঘরের ভেতরে সবাই যেমন আতংকিত হয়ে যায়, তেমনি এই ভয়ংকর বারির শব্দে সবাই চরম আতংকিত হয়ে যাবে। এই ভীষণ বারি পুরো মহাবিশ্বে মহাপ্রলয় ঘটানো শুরু করে দেবে।[৭]  (আর্টিকেলের বাকিটুকু পড়ুন)

আল্লাহ কাউকে তার সাধ্যের বাইরে কোনো কাজ চাপিয়ে দেন না — আল-বাক্বারাহ ২৮৬

সুরাহ আল-বাক্বারাহ‘র শেষ আয়াতটি অন্যতম সুন্দর একটি আয়াত। এখানে জীবন বদলে দেওয়ার মতো অসাধারণ কিছু বাণী রয়েছে। এই আয়াতটি নিয়ে আমরা যদি গভীরভাবে চিন্তা করি, জীবন সম্পর্কে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি বদলে যেতে বাধ্য। একইসাথে এই আয়াতে একটি সুন্দর দু‘আ রয়েছে, যা কঠিন অন্তরকে নরম করে দেবে।

আল্লাহ কাউকে তার সাধ্যের বাইরে কোনো কাজ চাপিয়ে দেন না। সে যা ভালো কাজ করেছে তার ফল পাবে এবং যা খারাপ করেছে তা তার বিরুদ্ধে যাবে। সুতরাং তাঁর কাছে এই বলে দু‘আ করো, “আমরা ভুলে গেলে বা ভুল করলে সে জন্য আমাদের ধরবেন না প্রভু। আমাদের আগেকার লোকদের উপর যেমন ভারী বোঝা দিয়েছিলেন, আমাদের উপর তেমন ভারী বোঝা দিয়েন না প্রভু। যে বোঝার ভার বইবার সামর্থ্য আমাদের নেই , সে-ই বোঝা চাপিয়ে দিয়েন না প্রভু। আমাদের অপরাধগুলো মাফ করে দিন। আমাদের পাপগুলো গোপন করে দিন। আমাদের দয়া করুন প্রভু। আপনিই তো আমাদের রক্ষাকর্তা। তাই অবিশ্বাসী লোকগুলোর বিরুদ্ধে আমাদের সাহায্য করুন।” [আল-বাক্বারাহ ২৮৬]

  (আর্টিকেলের বাকিটুকু পড়ুন)

আপনার কাছেই যে আমরা ফিরে যাব —আল-বাক্বারাহ ২৮৫

রাসূল বিশ্বাস করেন যা তার প্রভু তাকে পাঠিয়েছেন। পরিপূর্ণ বিশ্বাসীরাও তা-ই করে। তারা সবাই আল্লাহকে, তাঁর ফেরেশতাদের, তাঁর ধর্মগ্রন্থগুলো, তাঁর বার্তাবাহকদের বিশ্বাস করে। তারা বলে, “আমরা তাঁর রাসুলদের মধ্যে কোনো পার্থক্য করি না। আমরা শুনলাম। মানলাম। আমাদের ক্ষমা করুন প্রভু। আপনার কাছেই যে আমরা ফিরে যাব।” [আল-বাক্বারাহ ২৮৫]

মুসলিমদের জন্য একটি খুব সুন্দর একটা দু’আ রয়েছে এই আয়াতে, “আমরা তাঁর রাসূলদের মধ্যে কোনো বৈষম্য করি না। আমরা শুনলাম। মানলাম। আমাদের ক্ষমা করুন প্রভু। আপনার কাছেই যে আমরা ফিরে যাব।”

মুসলিমদের মধ্যে সমস্যা নেই “আমরা শুনলাম”-এই অংশটাতে, কিন্তু যাবতীয় সমস্যা হচ্ছে “মানলাম”-এ। যেমন কেউ বলেন, “কুর‘আন পড়তে ভালোই। অনেক নীতি কথা আছে। সুন্দর সুন্দর কাহিনী আছে। জাহান্নামের কীসব বাজে কথা লেখা আছে। কিন্তু তাই বলে এগুলো সব মানতে হবে নাকি? কুর‘আনের সব কথা আজকাল চলে না। হাজার বছর আগের আরবদের জন্য এটা ঠিক ছিল। আজকাল যুগ পাল্টেছে। আমাদেরকে নতুন করে চিন্তা করতে হবে।” — এই হচ্ছে আমাদের আসল সমস্যা।  (আর্টিকেলের বাকিটুকু পড়ুন)

তোমাদের মনে যা কিছু আছে, তা প্রকাশ করো বা গোপন রাখো — আল-বাক্বারাহ ২৮৪

কু’রআনে কিছু আয়াত রয়েছে, যেখানে আল্লাহ تعالى ইসলাম ধর্মের মূলনীতিকে এক কথায় জানিয়ে দিয়েছেন। আমরা যতই তাফসির, হাদিস, ফিকহ পড়ি এবং মানার চেষ্টা করি না কেন, এই মূলনীতিগুলো যদি ঠিকভাবে নিজের ভেতরে বাস্তবায়ন না করি, তাহলে ধর্মের আসল উদ্দেশ্য কী, তা আর ধরতে পারি না। মুসলিম হিসেবে আমাদের কথা এবং কাজ কেমন হওয়া উচিত ছিল, তা উপলব্ধি করি না। তখন আমরা ইসলাম ধর্মের আসল উদ্দেশ্য নিজের জীবনে এবং সমাজে বাস্তবায়ন করতে ব্যর্থ হই, নিজের এবং আশেপাশের মানুষের জীবনে অশান্তি ডেকে আনি। এরকম একটি আয়াত হলো—  (আর্টিকেলের বাকিটুকু পড়ুন)

যখন কাউকে নির্দিষ্ট মেয়াদ শর্তে ঋণ দেবে, তখন তা লিখে রাখবে — আল-বাক্বারাহ ২৮২-২৮৩

“ভাই, দাড়িওয়ালা দেখে নিশ্চিন্ত মনে ধার দিয়েছিলাম। এক বছর পার হয়ে গেছে, টাকা ফেরত তো দেয়ই না, ফোন করলেও এখন আর ধরে না। ইসলাম কি এই শেখায়?” — আমাদের মধ্যে একটা ধারণা আছে যে, যদি কাউকে টাকা ধার দেই, তাহলে সেটা লিখে রাখার দরকার নেই। পরিচিতদের মধ্যে ধার দিচ্ছি, লিখিত চুক্তি করতে গেলে কেমন যেন দেখায়। আর তাছাড়া ধর্মপ্রাণ মানুষ কি আর টাকা নিয়ে ফেরত দেবে না? আমরা অনেকেই জানি না যে, কাউকে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য ধার দিলে সেটা লিখিত চুক্তি করে রাখাটা ফরজ। কুর‘আনে আল্লাহ এই নিয়ে এক বিরাট আয়াত দিয়েছেন, যেন মুসলিমদের মধ্যে ধার দেওয়া নিয়ে ঝামেলা কমানো যায়। মুসলিম মানেই এই না যে, তারা ধার নিলে সময় মতো ফেরত দেবে। বরং সময় মতো ধার ফেরত দেওয়া নিয়ে মুসলিমদের মধ্যেই প্রচুর ঝামেলা হয় দেখেই কুর‘আনের সবচেয়ে বড় আয়াতে বলা আছে কীভাবে ধার দেওয়ার সময় লিখিত চুক্তি করে রাখতে হবে। এই আয়াতটিতে খুব পরিষ্কারভাবে ধার দেওয়ার নিয়ম, বাধ্যতা, সাক্ষীর দায়িত্ব ইত্যাদি বর্ণনা করা আছে—

বিশ্বাসীরা শোনো! যখন কাউকে নির্দিষ্ট মেয়াদ শর্তে ঋণ দেবে, তখন তা লিখে রাখবে। চুক্তিলেখক চুক্তির শর্তগুলো ঠিকঠাকমতো লিখে দেবে। আল্লাহ যেহেতু তাকে লেখা শিখিয়েছেন, কাজেই সে যেন লিখতে অস্বীকার না-করে। দেনাদার লোক চুক্তির যা যা শর্ত বলবে সে তা লিখবে। বলার সময় সে যেন তার প্রভু আল্লাহকে মনে রাখে—কোনো ঊনিশ-বিশ না-করে। সে যদি কম বুঝে, দুর্বল হয় বা ঠিকমতো বলতে না-পারে, তাহলে তার অভিভাবক যেন ঠিকঠাকভাবে সব বলে দেয়।
চুক্তির সময় তোমাদের মধ্যে থেকে দুজন পুরুষকে সাক্ষী রাখবে। দুজন পুরুষ পাওয়া না-গেলে তোমাদের সম্মতিতে সাক্ষীদের মধ্যে একজন পুরুষ ও দুজন নারীকে সাক্ষী রাখতে পারো; যাতে একজন নারী ভুল করলে অন্যজন মনে করিয়ে দিতে পারে।
সাক্ষ্য দিতে ডাকা হলে সাক্ষীরা যেন অস্বীকার না-করে। ঋণ যদি নির্দিষ্ট মেয়াদের ভিত্তিতে হয়, তাহলে তা ছোট-বড় যা-ই হোক, লিখে রাখার ব্যাপারে হেলাফেলা করবে না। কারণ, আল্লাহর কাছে এটা বেশি সুবিচারপূর্ণ, প্রমাণ হিসেবে বেশি নির্ভরযোগ্য এবং তোমাদের মধ্যে সন্দেহ তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা কম।
তবে তাৎক্ষণিক লেনদেন হলে না-লিখলে সমস্যা নেই। আর যখন পরস্পর বেচাকেনা করো, তখন সাক্ষী রাখো। চুক্তিলেখক বা সাক্ষীর কাউকেই কোনো ক্ষতি করা যাবে না। করলেই তোমাদের অপরাধ হবে। আল্লাহর প্রতি সাবধান!
আল্লাহই তোমাদের শেখান। আর আল্লাহ সবকিছুই ভালোভাবে জানেন। [আল-বাকারাহ ২৮২]

এই আয়াতটি হচ্ছে ঋণের উপর একটি সম্পূর্ণ আইন সঙ্কলন। আল্লাহ تعالى একটি আয়াতের মধ্যেই ঋণ সংক্রান্ত যাবতীয় নিয়ম আমাদেরকে বলে দিয়েছেন। এই আয়াতে বিশটিরও বেশি আইন রয়েছে। কোনো আইনজীবীকে যদি বলা হতো ঋণের যাবতীয় আইন নিয়ে লিখতে, তাহলে সে পঞ্চাশ পৃষ্ঠার এক বই লিখে নিয়ে আসতো, যা পড়তে গেলে মানুষের ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে যেত। তারপর সেই বইয়ে কথার মধ্যে বহু ফাঁকফোকর পাওয়া যেত। কয়েকবার তার সংশোধনী বের হতো। অথচ আল্লাহ تعالى আমাদেরকে এমন সুন্দর একটি আয়াত দিয়েছেন, যা কবিতার ছন্দের মতো পড়তে পারি, সুমধুর তিলাওয়াতে শুনতে পারি এবং শোনার সময় সংবিধান শোনার মতো একঘেয়ে মনে হয় না। একইসাথে এটি অত্যন্ত সূক্ষ্ম, কোনো ফাঁকফোকর নেই। কেউ দাবি করতে পারবে না যে, এই আয়াতে আইনগুলোর মধ্যে অমুক ফাঁক পাওয়া গেছে। আর ইসলাম যে বাস্তবতা বিমুখ, শুধুই ধর্ম-কর্মের মধ্যে সীমাবদ্ধ কোনো ধর্ম নয়, তার প্রমাণ এই আয়াত।[১১]  (আর্টিকেলের বাকিটুকু পড়ুন)