হে মানুষ, পৃথিবীতে যা কিছু হালাল এবং ভালো, পবিত্র আছে, তা খাও — আল-বাক্বারাহ ১৬৮

2_168_title

2_168হে মানুষ, পৃথিবীতে যা কিছু হালাল এবং ভালো, পবিত্র আছে, তা খাও। আর শয়তানের পথ অনুসরণ করো না। নিঃসন্দেহে সে তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু। [আল-বাক্বারাহ ১৬৮]

এই আয়াতে আল্লাহ تعالى বলছেন, “হে মানুষ”—এটি শুধু মুসলিমদের জন্যই নয়, বরং সকল যুগের, সকল মানুষের, সে মুসলিম হোক বা অমুসলিম—সবার জন্য নির্দেশ। এখানে আল্লাহ تعالى শুধুই বলেননি হালাল খাবার খেতে, একইসাথে সেটা তাইয়িবও হতে হবে। তাইয়িব طيب হচ্ছে যা ভালো এবং পবিত্র— দুটোই একসাথে।[১] যা কিছুই খেতে ভালো, দেখতে সুন্দর, শ্রুতিমধুর, সুন্দর ঘ্রাণ —সেগুলোই তাইয়িব।[১৬]

আল্লাহ تعالى আমাদেরকে যা দেন, সেটা আমাদের জন্য ভালো এবং পবিত্র। কিন্তু মানুষ অনেক সময় অনেক কিছু তৈরি করে যেটা খেতে ভালো হলেও, পবিত্র নয়। যেমন, আল্লাহ تعالى কলা দিয়েছেন, যা তাইয়িব— ভালো এবং পবিত্র। কিন্তু মানুষ যখন এই কলাকে পোকা মারার বিষ ডিডিটি এবং বিদেশ থেকে আনা কেমিক্যাল দিয়ে পাকিয়ে বিক্রি করে[৩১১], তখন সেটা খাওয়ার যোগ্য হলেও, সেটা আর পবিত্র থাকে না, তাইয়িব-এর দুটি শর্ত পূরণ করে না। সুতরাং, এই ধরনের কলা, ফরমালিন দিয়ে রাখা ফল, মাছ খাওয়ার ঝুঁকি নেওয়া যাবে না, কুর’আনের এই আয়াতের নিষেধের জন্য এবং নিজের স্বাস্থ্যের জন্য।

একইভাবে আল্লাহ تعالى প্রকৃতিতে পানি, চিনি দিয়েছেন। সেগুলো হালাল এবং তাইয়িব। কিন্তু এগুলোর সাথে ক্ষতিকারক রাসায়নিক পদার্থ, এসিড, মাত্রাতিরিক্ত পরিমাণের চিনি, রঙ ব্যবহার করে যখন নানাধরণের পানীয় তৈরি করে, তখন সেটা আর তাইয়িব থাকে না।  (আর্টিকেলের বাকিটুকু পড়ুন)

চলে যাও এখান থেকে — আল বাক্বারাহ ৬১ পর্ব ২

বনী ইসরাইলিরা আল্লাহর تعالى দেওয়া ফ্রি, স্বাস্থ্যকর খাবার মান্‌ন এবং সালওয়ার মূল্য বুঝলো না। তারা নবী মূসাকে عليه السلام শাকসবজি, শশা, ডাল, রসুন, পেঁয়াজ ইত্যাদির একটা বাজারের লিস্ট দিয়ে বলল, আল্লাহর تعالى  কাছ থেকে এগুলো নিয়ে আসতে। তখন নবী মূসা عليه السلام রেগে গিয়ে বললেন:

2_61_3

চলে যাও এখান থেকে কোনো একটা শহরে! সেখানে তোমরা যা চেয়েছ, ঠিক তাই পাবে।

তিনি বনী ইসরাইলিদেরকে তাচ্ছিল্য করে বললেন যে, তারা যা চেয়েছে, ঠিক তাই পাবে। তারা ফ্রি, স্বর্গীয় খাবার খেয়ে তার মর্ম বোঝেনি। এখন বুঝবে দুনিয়ার খাবার জোগাড় করা কত কষ্টের। তারা স্বাস্থ্যকর খাবারের মূল্য দেয়নি। এখন নিজেদের বানানো অস্বাস্থ্যকর খাবার খেয়ে তার মাসুল দেবে। খাবারের চিন্তা না থাকায় তারা প্রতিদিন এত সময় পেত নিজেদেরকে সংশোধন করার জন্য, আল্লাহর تعالى ইবাদতের জন্য, সুস্থ বিনোদনের জন্য। এখন জীবনযুদ্ধে পড়ে বুঝবে ঠেলা কাকে বলে।  (আর্টিকেলের বাকিটুকু পড়ুন)

একই খাবার আর খাবো না — আল-বাক্বারাহ ৬১ পর্ব ১

কল্পনা করুন: বনী ইসরাইলের কয়েকজন বসে আড্ডা দিচ্ছে। আড্ডা প্রসঙ্গে খাবারের কথা আসলো। তখন দুই জনের মধ্যে কথোপকথন শুরু হলো—

“আজকে দুপুরের মেনু কি?”
— “মান্‌ন, আর সাথে সালওয়া।”
“আচ্ছা। রাতের মেনু কি?”
— “সালওয়া, আর সাথে মান্‌ন।”

দিনের পর দিন মান্‌ন এবং সালওয়া খেয়ে তারা বিরক্ত। তাদের খাবারের মেনুতে বৈচিত্র্য দরকার। তারা নবী মূসার عليه السلام কাছে গিয়ে আপত্তি জানাল—

2_61_1

মনে করে দেখো, যখন তোমরা বলেছিলে, “মূসা, আমরা এই একই খাবার খেয়ে আর থাকতে পারব না। ” এই পৃথিবীতে জন্মায় এমন সব খাবারের জন্য তোমার প্রভুর কাছে দু’আ করো— যেমন তরকারি, শসা, রসুন, ডাল, পেঁয়াজ।

তারা মুসা নবীকে عليه السلام একেবারে পুরো বাজারের লিস্ট ধরিয়ে দিল আল্লাহর تعالى কাছ থেকে নিয়ে আসার জন্য!  (আর্টিকেলের বাকিটুকু পড়ুন)

তোমরা ইচ্ছেমত যত খুশি খাও – বাকারাহ ৫৮

2_58

মনে করে দেখো, যখন আমি বলেছিলাম, “এই শহরে প্রবেশ করো এবং এখানে তোমরা ইচ্ছেমতো যত খুশি খাও, কিন্তু এর দরজা দিয়ে প্রবেশের সময় আমার প্রতি (কৃতজ্ঞতায়) অবনত হয়ে প্রবেশ করো  এবং বলতে থাকো, “আমাদের পাপের বোঝা হালকা করে দিন!” তাহলে আমি তোমাদের দোষ-ত্রুটি-অন্যায় আচরণ ক্ষমা করে দিব এবং যারা ভালো কাজ সুন্দরভাবে করে তাদের পুরস্কার আরও বাড়িয়ে দিব। [আল-বাকারাহ ৫৮]

কু’রআনে এই কথাগুলো বার বার আসে: সুস্বাদু খাবারের কথা, জীবনকে উপভোগ করার কথা, আল্লাহর تعالى সৃষ্টি করা এই অত্যন্ত সুন্দর পৃথিবী এবং আকাশ ঘুরে দেখা। আল্লাহ تعالى আমাদেরকে কু’রআনে বার বার তাঁর অনুগ্রহের কথা চিন্তা করতে বলেছেন, আমাদেরকে হালাল উপায়ে জীবনকে উপভোগ করে আখিরাতে আরও বেশি আনন্দের জন্য চেষ্টা করতে বলেছেন।

  (আর্টিকেলের বাকিটুকু পড়ুন)

তোমাদেরকে ভালো এবং পবিত্র যা কিছু খেতে দিয়েছি, সেটা খাও — বাকারাহ ৫৭

বনি ইসরাইলের এক বিশাল কাফেলা নিয়ে নবী মুসা عليه السلام হেঁটে যাচ্ছেন এক বিশাল মরুভূমির মধ্য দিয়ে। যেদিকে চোখ যায় কোনো পানি বা খাবারের ব্যবস্থা নেই, তার উপর প্রচণ্ড রোদের তাপ। নারী, শিশু, বৃদ্ধ নিয়ে কাফেলার মানুষদের মৃত প্রায় অবস্থা। এমন সময় আল্লাহর تعالى আদেশে তাদের মাথার উপরে মেঘ জড়ো হয়ে, তাদের জন্য আরামদায়ক ছায়া তৈরি করল।[৬][১][৩]

2_57

আমি মেঘ দিয়ে তোমাদের জন্য আরামদায়ক ছায়ার ব্যবস্থা করেছিলাম, তোমাদেরকে উপর থেকে মান্না এবং সালওয়া পাঠিয়েছিলাম—“তোমাদেরকে ভালো এবং পবিত্র যা কিছু খেতে দিয়েছি, সেটা খাও।” আর ওরা আমার উপর কোনোই অন্যায় করেনি, বরং ওরা নিজেদের সাথেই অন্যায় করছিল। [বাকারাহ ৫৭]

আরবি গামাম (غمام) হচ্ছে ঘন মেঘ, কিন্তু সেটা ঝড়ের মেঘের মতো ভয়ংকর মেঘ নয়, বরং ছায়া দেয়, এমন ঘন প্রশান্তিকর, হাসিখুশি মেঘ।[১] মরুভুমিতে বনি ইসরাইলিদের কোনো বাড়িঘর ছিল না। এত গাছপালাও ছিল না যেখানে হাজার হাজার মানুষ আশ্রয় নিতে পারে। যদি আল্লাহ تعالى তাদের জন্য দিনের বেলা মেঘ দিয়ে ছায়ার ব্যবস্থা না করে দিতেন, তাহলে তারা হিট স্ট্রোক করে মারা যেত।[৩]  (আর্টিকেলের বাকিটুকু পড়ুন)