বাবা-মা এবং নিকটজনদের জন্য ন্যায়সঙ্গতভাবে উইল-ওসীয়ত করে যাবে — আল-বাক্বারাহ ১৮০-১৮২

  • সম্পত্তি লিখে না দেয়ায় গলা টিপে মা-কে খুন। [দৈনিক জনকণ্ঠ, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৫]
  • সম্পত্তির বিরোধের জের ধরে ছেলে-কে তার মা দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা [ইনকিলাব ১ জুন, ২০১৫]
  • ভাইয়ের সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে বাবাকে খুন। [দৈনিক পূর্বকোণ, জুলাই ১৪, ২০১৫]
  • সম্পত্তি লোভী দুই পুত্রের হাতে পিতা খুন। [ভোরের বার্তা জুলাই ১২, ২০১৪]
  • হবিগঞ্জে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের জের ধরে ভাইদের হাতে এক ভাই খুন [যুগান্তর ০১ এপ্রিল, ২০১৫]
  • স্ত্রীর হাতে খুন তাবলিগ জামাতের নেতা ইব্রাহীম। [নয়া দিগন্ত ২০ মে ২০১৫]
  • সম্পত্তির ভাগবাটোয়ারা নিয়ে নিজ স্ত্রী জবাই করে হত্যা করেছে স্বামীকে। [সংবাদ ২০ মে ২০১৫]

—সম্পত্তি নিয়ে মানব সভ্যতার সূচনা থেকে নানা ধরনের বর্বর হত্যাকাণ্ড ঘটে চলেছে। আজকের আধুনিক যুগেও বর্বরতা একটুও কমেনি। ধনী, গরিব, উন্নত, অনুন্নত, মুসলিম প্রধান, অমুসলিম প্রধান সব দেশেই সম্পত্তি নিয়ে ভয়ঙ্কর সব পাশবিক ঘটনা ঘটে।[৩২৪] একারণে কুর’আনে আল্লাহ تعالى আমাদের কঠিনভাবে সম্পত্তির সঠিক ভাগবাটোয়ারা করে দিতে বলেছেন। বিশেষ করে উত্তরাধিকারদের সঠিকভাবে ওসীয়ত বা উইল করে যাওয়া মুসলিমদের জন্য ফরজ।[১২][৮] দুঃখজনকভাবে মুসলিমরা যতখানি নামাজ, রোজার ব্যাপারে গুরুত্ব দেয়, কুর’আনে অন্যান্য ফরজ নির্দেশগুলোর ব্যাপারে ততখানিই উদাসীন থাকে। যার ফলাফল হয় ভয়াবহ, আর দোষ হয় মুসলিম সমাজের, সর্বোপরি ইসলামের।

2_180-182_title2_1802_1812_182

তোমাদের উপর বাধ্যতামূলক করা হয়েছে যে, তোমাদের কেউ যখন মৃত্যুশয্যায় পৌঁছে যায়, তখন যদি যথেষ্ট সম্পত্তি রেখে যায়, তাহলে বাবা-মা এবং নিকটজনদের জন্য ন্যায়সঙ্গতভাবে উইল/ওসীয়ত করে যাবে। যারা আল্লাহর প্রতি সাবধান—মুত্তাক্বি, তাদের জন্য তা বাধ্যতামূলক।[১৮০] কেউ যদি উইল/ওসীয়ত শোনার পরেও তাতে পরিবর্তন করে, তাহলে তার উপর সমস্ত গুনাহ হবে। সাবধান! আল্লাহ অবশ্যই সব শোনেন, সব জানেন।[১৮১] কিন্তু কেউ ওসীয়তকারীদের বা সাক্ষীদের থেকে পক্ষপাতিত্ব বা অন্যায়ের আশংকা করে যদি তা তাদের মধ্যে সংশোধন করে দেয়, তাহলে তার কোনোই গুনাহ হবে না। অবশ্যই আল্লাহ অনেক ক্ষমা করেন, তিনি নিরন্তর দয়ালু।[১৮২] [আল-বাক্বারাহ ১৮০-১৮২]

আজকাল আধুনিক মুসলিমদের মধ্যে ইসলামের উত্তরাধিকার আইন সম্পর্কে একধরনের বিতৃষ্ণা কাজ করতে দেখা যায়। বিশেষ করে অমুসলিমদের নানা ধরনের অপপ্রচারের কারণে তারা বিভ্রান্ত হয়ে মনে করেন যে, ইসলামের উত্তরাধিকার আইন আজকের যুগের জন্য অচল। যেমন, একটি বহুল আলোচিত ব্যাপার হচ্ছে মেয়েদেরকে ছেলেদের অর্ধেক সম্পত্তি দেওয়া নিয়ে বিতর্ক। এই বলে অভিযোগ করা হয় যে, ইসলাম মেয়েদেরকে ছোট করে দেখে, ছেলেদের থেকে অর্ধেক সম্পত্তি দেয়। দুজন মেয়ের সাক্ষীকে একজন ছেলের সাক্ষীর সমান মনে করে। ইসলাম মেয়েদেরকে সমান অধিকার দেয় না, সমান সম্পত্তি দেয় না ইত্যাদি।

প্রথমত, ইসলাম পুরুষ এবং মহিলার মধ্যে সম্পত্তির ‘সমান’ বণ্টন করে না, বরং সম্পত্তির ‘সুষম’ বণ্টন করে। সুষম বণ্টন না করে সমান বণ্টন করলে দেখা যায়: কোনো পরিবারের এক ছেলে এবং এক মেয়ে সমান সম্পত্তি পায়, তারপর ছেলেটা বিয়ে করে আরেকটা মেয়েকে মোটা অংকের দেন মোহর দেয়, পরিবারের ভরণ পোষণের সব খরচ দেয়। আর মেয়েটা বিয়ে করে আরেক ছেলের কাছ থেকে মোটা অংকের দেন মোহর পায়। তার স্বামীর কাছ থেকে ভরণ পোষণের সব খরচ পায়। এভাবে ছেলেরা সম্পত্তি হারাতে থাকে, আর মেয়েরা সম্পত্তি লাভ করতে থাকে।[৩২৫]

এছাড়া ছেলেদের জন্য পরিবারের ভরণ পোষণ করা বাধ্যতামূলক। ইসলামী আইনে মেয়েরা একটা টাকাও পরিবারের জন্য খরচ করতে বাধ্য নয়। মা তার ভরণ পোষণ পাবেন তার ছেলের কাছ থেকে। বোন পাবে ভাইয়ের কাছ থেকে। মেয়ে পাবে বাবার কাছ থেকে। যদি কোনোই পুরুষ সম্পর্ক না থাকে, তাহলে ইসলামী সরকারের দায়িত্ব সেই মেয়ের ভরণ পোষণ দেওয়া। ইসলামে মেয়েদের ভরণ পোষণ দেওয়ার সব ব্যবস্থা করা আছে, যেন জীবিকার জন্য তারা কখনো কাজ করতে বাধ্য না হয়।[৩২৫]

যদি সম্পত্তির সুষম বণ্টন না করে, সমান বণ্টন করা হয়, তাহলে ছেলে-মেয়ের মধ্যে বংশ পরম্পরায় সম্পত্তির ব্যবধান বাড়তেই থাকবে, যা মেয়েদের জন্যই বিরাট ঝুঁকির কারণ হয়ে যাবে। ফলাফল হবে: “সম্পত্তি লিখে না দেয়ায় গলা টিপে মাকে খুন [দৈনিক জনকণ্ঠ, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৫], সম্পত্তির ভাগবাটোয়ারা নিয়ে নিজ স্ত্রী জবাই করে হত্যা করেছে স্বামীকে। [সংবাদ ২০ মে ২০১৫]” —এই ধরণের পাশবিক ঘটনাগুলো।

দ্বিতীয়ত, যারা মেয়েদের অর্ধেক সম্পত্তি পাওয়া নিয়ে গলাবাজি করছেন, তারা কেউ কিন্তু বলছেন না যে, ইসলামে মেয়েরা কিছু পরিস্থিতিতে ছেলেদের সমান, ছেলেদের থেকে বেশি, এমনকি কিছু ক্ষেত্রে সব সম্পত্তি মেয়েরাও পায়, যেখানে ছেলেরা কিছুই পায় না। ইসলামে মেয়েদের সম্পত্তির পরিমাণ ছেলেদের অর্ধেক, সমান, বেশি বা সব সম্পত্তি হবে কিনা, তা নির্ভর করে পরিস্থিতির উপর—

১) মহিলা কখন পুরুষের সমান সম্পত্তি পাবে:

কেউ যদি বাবা-মা এবং একটি সন্তান রেখে মারা যায়, তাহলে বাবা এবং মা সমান সম্পত্তি পাবেন, যা মৃতের সম্পত্তির ছয়ভাগের একভাগ। [আন-নিসা ৪:১১]

মৃতের আপন ভাই ও আপন বোন সম্পত্তির সমান সমান ভাগ পায়।[৩২৫]

২) মহিলা কখন পুরুষের থেকে বেশি সম্পত্তি পাবে:

কেউ যদি একজন আপন বোন, এবং তিন-জন সৎ ভাই রেখে মারা যায়, তাহলে আপন বোন অর্ধেক সম্পত্তি পাবে। বাকি অর্ধেক সমানভাবে সৎ-ভাইদের মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হবে। এভাবে বোন পাবে ভাইদের থেকে বেশি।[৩২৫]

৩) মহিলা কখন সব সম্পত্তি পাবে, পুরুষ কিছুই পাবে না:

যদি কোনো মহিলা তার স্বামী, আপন বোন এবং সৎ ভাই রেখে মারা যান, তাহলে সৎ ভাই কোনো সম্পত্তি পাবে না। অর্ধেক সম্পত্তি যাবে বোনের কাছে, বাকি অর্ধেক স্বামীর কাছে।[৩২৫]

এভাবে দেখা যায় যে, ইসলামী উত্তরাধিকার আইন সম্পর্কে ঢালাওভাবে যে সব অপপ্রচার চলছে সেগুলো উদ্দেশ্য প্রণোদিত। আল্লাহ تعالى আমাদেরকে যেই আইন দিয়েছেন, সেটা ঠিকভাবে মেনে চললে পুরুষ-মহিলার মধ্যে সম্পত্তির বৈষম্য দূর করা যাবে, পুরুষ তার দায়িত্ব অনুসারে যথাযথ সম্পত্তি পাবে, মহিলা তার দায়িত্ব অনুসারে যথাযথ সম্পত্তি পাবে। সম্পত্তির সুষম বণ্টন হবে।[৩২৫]

আমাদেরকে মনে রাখতে হবে, পুরুষ এবং মহিলা কখনই সমান নয়, এমনকি আধুনিক যুগে, আধুনিক আইন এবং সমাজ ব্যবস্থাতেও নয়। যারা পুরুষ এবং মহিলাকে সমান বলতে চান, তাদেরকে যদি জিগ্যেস করা হয়: “সন্তানসম্ভবা মায়েদের সন্তান জন্ম দানের আগে ও পরে বেতন, ছুটি দেওয়া হয়, কিন্তু বাবাদের বেলায় দেওয়া হয় না কেন, যদিও কিনা সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে মা মারা যায়?” “মেয়েরা কঠিন শারিরিক পরিশ্রম, ভারি মাল পরিবহণ, মেনহোল, সুয়ারেজ পরিস্কার, ট্রাক চালানো এসব কাজ করে না কেন?” “মেয়েরা রাতে সিকিউরিটি গার্ডের কাজ করে না কেন?” —তখন তাদের আসল চেহারা বের হয়ে যায়।

সূত্র:

  • [১] নওমান আলি খানের সূরা আল-বাকারাহ এর উপর লেকচার এবং বাইয়িনাহ এর কু’রআনের তাফসীর।
  • [২] ম্যাসেজ অফ দা কু’রআন — মুহাম্মাদ আসাদ।
  • [৩] তাফহিমুল কু’রআন — মাওলানা মাওদুদি।
  • [৪] মা’রিফুল কু’রআন — মুফতি শাফি উসমানী।
  • [৫] মুহাম্মাদ মোহার আলি — A Word for Word Meaning of The Quran
  • [৬] সৈয়দ কুতব — In the Shade of the Quran
  • [৭] তাদাব্বুরে কু’রআন – আমিন আহসান ইসলাহি।
  • [৮] তাফসিরে তাওযীহুল কু’রআন — মুফতি তাক্বি উসমানী।
  • [৯] বায়ান আল কু’রআন — ড: ইসরার আহমেদ।
  • [১০] তাফসীর উল কু’রআন — মাওলানা আব্দুল মাজিদ দারিয়াবাদি
  • [১১] কু’রআন তাফসীর — আব্দুর রাহিম আস-সারানবি
  • [১২] আত-তাবারি-এর তাফসীরের অনুবাদ।
  • [১৩] তাফসির ইবন আব্বাস।
  • [১৪] তাফসির আল কুরতুবি।
  • [১৫] তাফসির আল জালালাইন।
  • [১৬] লুঘাতুল কুরআন — গুলাম আহমেদ পারভেজ।
  • [৩২৪] Dailyjanakantha.com,. (2015). সম্পত্তি লিখে না দেয়ায় গলা টিপে মাকে খুন || দেশের খবর | The Dailay Janakantha. Retrieved 19 August 2015, from http://dailyjanakantha.com/?p=details&csl=108432Jugantor.com,. (2015).
    বিগঞ্জে ছোট ভাইদের হাতে বড় ভাই খুন. Retrieved 20 August 2015, from http://www.jugantor.com/bangla-face/2015/04/01/243159
    Dainikazadi.org,. (2015). সম্পত্তি না পেয়ে পিতাকে খুন . Retrieved 20 August 2015, from http://www.dainikazadi.org/details2.php?news_id=829&table=september2013&date=2013-09-08&page_id=36&view=
    BhorerBarta.com,. (2014). টাঙ্গাইলের গোপালপুরে সম্পত্তি লোভী দুই পুত্রের হাতে পিতা খুন . Retrieved 20 August 2015, from http://www.bhorerbarta.com/?p=6308
    The Daily Nayadiganta,. (2015). স্ত্রীর হাতেই খুন হন তাবলিগ জামাতের নেতা ইব্রাহীম | daily nayadiganta. Retrieved 20 August 2015, from http://www.dailynayadiganta.com/detail/news/23999
    দৈনিক পূর্বকোণ,. ভাইয়ের সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে বাবাকে খুন করেছি – দৈনিক পূর্বকোণ. Retrieved 20 August 2015, from http://www.dainikpurbokone.net/35731/%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A7%9F%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A7%8D%E0%A6%AA%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%BF-%E0%A6%B9%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%A8/
    দৈনিক ইনকিলাব,. (2015). বরুড়ায় মায়ের হাতে ছেলে খুন . Retrieved 20 August 2015, from http://www.dailyinqilab.com/details/13054/%E0%A6%AC%E0%A6%B0%E0%A7%81%E0%A7%9C%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A7%9F%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B9%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%9B%E0%A7%87%E0%A6%B2%E0%A7%87-%E0%A6%96%E0%A7%81%E0%A6%A8-
  • [৩২৫] Onislam.net,. (2015). Islamic Inheritance Laws: Inherently Unjust?. Retrieved 20 August 2015, from http://www.onislam.net/english/ask-about-islam/society-and-family/status-of-women/167166-islamic-inheritance-laws-inherently-unjust.html

নতুন আর্টিকেল বের হলে জানতে চাইলে কু’রআনের কথা ফেইসবুক পেইজে লাইক করে রাখুন—


ডাউনলোড করুন কুর‘আনের কথা অ্যাপ

12 thoughts on “বাবা-মা এবং নিকটজনদের জন্য ন্যায়সঙ্গতভাবে উইল-ওসীয়ত করে যাবে — আল-বাক্বারাহ ১৮০-১৮২”

  1. Assalamu Alaikum. I think, the point (with footnote 325) is wrongly translated here. It should be the brothers and sisters of the deceased mother in the absence of sons and daughters, in which case the brothers and sisters will get the equal share. For more, please see: http://islamqa.info/en/12911

    Niaz

  2. apni bollen meyera kom pabe karon “ছেলেটা বিয়ে করে আরেকটা মেয়েকে মোটা অংকের দেন মোহর দেয়, পরিবারের ভরণ পোষণের সব খরচ দেয়।” .. ekta meye kin2 emni emni দেন মোহর ba পরিবারের ভরণ পোষণের taka pay na.. tar bodole ekta meyeo shongsharer jonno onk hardwork kore.. ekt ashongshar e manush dayitto vagavai kore nibe etai uchit.. meyeta jodi ghorer shob kaj koe shamik redhe khawate paer tahole she bodole ভরণ পোষণের সব খরচ to petei pare..

    1. ধন্যবাদ আপনার অভিযোগগুলোর জন্য। চেষ্টা করি উত্তর দেওয়ার। মেয়েরা সংসারের জন্য কাজ করে, ছেলেরাও সংসারের জন্য কাজ করে। পার্থক্য হচ্ছে মেয়েরা দেন মোহর পায়, ছেলেরা পায় না। মেয়েরা ঘরের কাজ করে দেখেই দেন মোহর পাওয়ার যোগ্য, যদি এই যুক্তি মেনে নেই, তাহলে ছেলেরাও সংসার চালানোর জন্য কাজ করে, সুতরাং ছেলেরাও দেন মোহর পাওয়ার যোগ্য। যা হোক, এগুলো কোনো যুক্তি নয়। দেন মোহরের সাথে ঘরের কাজ করার কোনোই সম্পর্ক নেই। ইসলামী আইন অনুসারে মেয়েরা ঘরের কাজ করতে মোটেও বাধ্য নয়। সে বসে বসে খেলেও তাকে দেন মোহর দিতে হবে। সুতরাং ঘরের কাজ বা পরিবারের অন্য কোনো দায়িত্বের সাথে দেন মোহরের কোনো সম্পর্কই নেই। আর দেন মোহর দেওয়ার জন্য ছেলেরা বেশি সম্পত্তি পাবে, সেটা আসল কারণ নয়। দেন মোহরের সাথে সম্পত্তির উত্তরাধিকারেরও কোনোই সম্পর্ক নেই। এখানে উদাহরণ হিসেবে দেন মোহরের ব্যাপারটা দেখানো হয়েছে এই পার্থক্যটাই তুলে ধরার জন্য যে, ইসলামে পুরুষ এবং মহিলাকে সমান করে দেখা হয় না, কারণ পুরুষ এবং মহিলার দায়িত্ত্ব এবং সুযোগ সুবিধা ভিন্ন। ভিন্ন দায়িত্ব, ভিন্ন দাবি, ভিন্ন সুযোগ-সুবিধা থাকার পরেও সম্পত্তির বেলায় সব সমান হতে হবে, ফেমিনিস্টদের এইসব দাবি অযৌক্তিক। আশাকরি ঠাণ্ডা মাথায় সময় নিয়ে চিন্তা করবেন।

      1. vi apnader kotha shunle mone hoy shob meyeder dhonkuber seleder shate bie hoy r tara shudu boshe boshe khay.. slea den mohor pabar joyo na .. karon seleder kaj e hosse meyeder denmohor ba voronposhon dewa.. shetar bodole tara onno onk shubidha pay.. apnar juktita emon j kono customer dokane jeye bollo j ami jinish kine kaj kortesi .. ti amakeo jinisher damer ekta ongsho dite hobe..

      2. apni nieji logic dekhalen selera beshi pay karon “ছেলেটা বিয়ে করে আরেকটা মেয়েকে মোটা অংকের দেন মোহর দেয়,” r pore bolsen “দেন মোহরের সাথে সম্পত্তির উত্তরাধিকারেরও কোনোই সম্পর্ক নেই।” apnar kotha gula contradictory hoye gelo na?

      3. apni bollen “ইসলামী আইন অনুসারে মেয়েরা ঘরের কাজ করতে মোটেও বাধ্য নয়। সে বসে বসে খেলেও তাকে দেন মোহর দিতে হবে।” erokom obastob iloogical kotha bolen kivabe.. allah ki shob meyeder kopale dhon kuber jamai likhe rkahse tara boshe boshe khaileo kono problem hobe na.. kono duniay thaken .. shuner naribadi andolonk apnar to khaap lagbei .. karon apnara mone koren saudir tel behca tkay boshe boshe khawa manush gulai mone hoy standard example .. eijonnoi erokom obastob chinta koren,… apnar yaner jonno janassi apni jader ameriacar potita bolsen tara shongsharer jonno harvanga khatuni khate, ebong baba-maro dekhashuna kore.. taderke potita bole apni nijer murkhotar porichoy disen..

  3. baba-mar proti je shontan beshi dayitto palon korbe tar odhikar beshi howa uchit.. but ajkalkar dine jkhane meyera baba-mar proti onk khetre beshi dayitto palon kore shekhane tara kom pabe kno.. vi tar familyr voronposhon korbe .. eta tar duty .. ti bole bon kom pabe kno..

  4. sele na meye boo tulona koratai hashyokor .. onk meye ase jader bindumatro jogyotao beshirvag seler ni.. apnar kotha shune mone holo joyotar mapkathi holo security gaurd howa ba manhole clean kora.. r shob sele ba shob meye ki eki rokom hoy?.. age shobaike manus vabte shikhun..

    1. আপনার এই মন্তব্যের কারণ খুঁজে পেলাম না। কোথাও বলা হয়নি যোগ্যতার মাপকাঠি হচ্ছে ওই সব কাজগুলো। আপনি কীভাবে এই উপসংহারে চলে গেলেন তা আমি অনেক চিন্তা করেও বের করতে পারছি না। আমি যা বলতে চেয়েছি তা হচ্ছে, ছেলে এবং মেয়ে ভিন্ন। তাদেরকে বানানো হয়েছে ভিন্ন ধরণের কাজ করার জন্য। ভিন্ন শারিরিক গঠন, সামাজিক দায়িত্ব, চাকরি-ব্যবসার দায়িত্ব থাকার পরেও পুরুষ এবং মহিলাকে সমান মনে করাটা হাস্যকর। ভিন্ন পেশার, ভিন্ন দায়িত্বের মানুষের ভিন্ন চাহিদা এবং দাবি থাকবেই। পুরুষরা কেউ মহিলাদের সন্তান হওয়ার সময় ছুটি এবং বেতনের বাড়তি দাবি অস্বীকার করছে না। অথচ মহিলারা ঠিকই পুরুষদের সমস্যাগুলোকে উপেক্ষা করে, তাদের দাবিগুলো নাকচ করে দেওয়ার চেষ্টা করছে। এটা কোনো সমতা হলো না। এটা অন্যায় দাবি। কোনো সুবুদ্ধি, নিরপেক্ষ চিন্তার মানুষ কখনোই এই ধরণের অন্যায় দাবি করতে পারে না। মানব সভ্যতা হাজার হাজার বছর ধরে চলে আসছে। কখনো এই সব অন্যায় দাবি উঠেনি। এগুলো সব শুরু হয়েছে ৬০ দশকের আমেরিকার পতিতাদের পরিচালিত ‘ফেমিনিস্ট’ আন্দোলন থেকে। দুঃখজনক ভাবে তাদের কৌশল বুঝতে না পেলে, ঠিকভাবে চিন্তা ভাবনা না করেই আধুনিক মেয়েরা এই আন্দোলনে গা ভাসিয়ে দিচ্ছে।

      1. purush nari dujoner life ei difference ase .. shudu nari purush kno shudu nari ba shudu purushder majheo onk difference ase.. tar mane emon na j purushra naride double property pabe.. apni meyeder maternity leave er kotha bolsen manush oshustho holeo to tak chuti dewa hoy .. tahole ki ekhon shustho manushrao chuti dabi korbe?..

      2. apni meyedeer kom property pawak support korsen.. tarpor bolsen meyera to oi kajgula pare na.. ti mone holo ete apanar chokhe meyeder jogyota kome gelo..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *